নিজের ডিজাইন করা ড্রেস দিয়ে দেশ ও বিদেশে সফল ডিজাইনার আনজুম জামান

 নিজের ডিজাইন করা ড্রেস দিয়ে দেশ ও বিদেশে সফল ডিজাইনার আনজুম জামান

পোশাক হচ্ছে মানুষের ব্যক্তি সত্ত্বার বহিঃপ্রকাশ। অনেক সময় পোশাকও কথা বলে, পোশাকই বলে দেয় তাঁর শিক্ষা, সংস্কৃতি, রুচিবোধ আর সামাজিক অবস্থান।আমাদের পোশাক আমাদের রুচির পরিচয় বহন করে।আর সুন্দর ডিজাইনের পোশাক আমরা কে না পছন্দ করি।নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ডিজাইনিং একটি নিজেদের স্বাবলম্বী করার উপযোগী ক্ষেত্র। ফ্যাশন ডিজাইনিং একটি সৃজনশীল পেশা । আর এই সৃজনশীল পেশায় একজন সফল উদ্যোক্তা রংপুরের আনজুম জামান

আনজুম জামান রংপুর জেলার শ‍্যামপুরে জন্মগ্রহন করেন।স্বামীর চাকুরী সুবাদে বর্তমানে ঢাকায় থাকেন।পরিবারে তিন ভাই বোনের মধ্যে তিনি সবার ছোট।তিনি একজন ফ‍্যাশন ডিজাইনার এবং দেশী পণ্যের ই-কমার্স উদ‍্যোক্তা। তার ব্যাবসায়ের নাম “Mannota Babies fashion” কথা বলছি আনজুম জামান এর সাথে।

সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন টাঙ্গাইল জেলার প্রতিনিধি রোয়েনা রহমান।

আপনার উদ্যোক্তা জীবনের শুরুতে কার কাছে অনুপ্রেরণা পেয়েছিলেন?

আমার বড় সাপোর্টার আমার বাবা।যিনি আমাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছেন।যার কাছ থেকে জীবনের মূল‍্যবান শিক্ষা পেয়েছি।আমার অন‍্যতম শিক্ষক আমার বাবা।আজ বাবা নেই কিন্তু আমি সমসময় মনে করি বাবা ওপার থেকে দেখছে তাঁর ছোট মেয়ের এগিয়ে যাওয়া এবং জানি বাবা অনেক খুশী হচ্ছেন।গর্ববোধ করছেন।

বর্তমানে আপনার সাথে কে কে রয়েছেন?

বতর্মানে অনুপ্রেরণা দেয়ার মধ্যে আমার হাসবেন্ড আমার বড় বোন আছেন, যারা সবসময় আমাকে এগিয়ে যেতে উৎসাহিত করেন।

নিজের জীবনের কোন ধরনের ভাবনা বা ছবি আপনাকে উদ্যোক্তা হতে শক্তি জাগালো?

আপনাকে জীবনে নিজের জন্য হলেও কিছু একটা করা দরকার। আমি এমন কিছু করবো যার ফলে নিজের পরিচয়ে পরিচিত হবো এবং নিজের পাশাপাপাশি অন‍্যদের কাজের সুযোগ সৃষ্টি করবো।এই স্বপ্ন দেখতে দেখতে এইচএসসি পরিক্ষা শেষে বিয়ে হয়ে যায়।তখন আমার স্বপ্নগুলো পূরণ করা কঠিন হয়ে যায়। গ্রাজুয়েশন শেষ করি।পড়ালেখার পাশাপাশি ডিজাইনিংয়ের উপর কোর্স করি। কাজের উপর প্রচন্ড আগ্রহ থাকায় এ পেশায় পা রাখি।বিজনেস শুরুর আর একটি বিশেষ কারন হলো আমার মেয়ে।আমি যখন মেয়ের মা হলাম তখন আমার মাথায় আসে যে আমি মেয়ে হয়ে জীবনে যখন কিছু করতে চেয়েছি অনেক রকম বাধা ফেস করেছি, সেটা যেন আমার মেয়েকে করতে না হয়।আর সেজন্য আমাকে এখনি কিছু করতে হবে যেন আমার মেয়ে এসব বাধা না পায়।

আর একটি গুরুত্বপূর্ণ কারন শেয়ার না করলেই নয় তা হলো আমার পরিবার।বাবা-মা হিসেবে তারা আমাকে নিয়ে কত স্বপ্ন দেখেছে আর তাই আমারো সন্তান হিসেবে দায়িত্ব আছে তাদের স্বপ্ন পূরণ করার। তবেই তো আমার সন্তান আমার স্বপ্ন পূরণ করবে।শুরুতে অফ লাইনে আমার মোটামুটি সেল ভালোই ছিলো।আমার ছোটদের ড্রেস তৈরী করতে ভীষণ ভালো লাগে।যখন আমি আমার মেয়ের জন্য ড্রেস তৈরী করে পরিয়ে অন্য বাচ্চা ও তাদের মায়ের সামনে যেতাম যারাই দেখতো সেই ড্রেসের প্রশংসা করতো এবং অর্ডার করতো।যেকোনো অনুষ্ঠানে গেলেও আমার ড্রেসের সকলে প্রশংসা করতো জানতে চাইতো কোথায় থেকে কিনেছি।তখন সামনে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা পেতাম।

আপনার সাফল্যের মূলমন্ত্র কি? বিশেষ কেউ কি রয়েছে আপনার আজকের সাফল্যের পেছনে?

ডিজাইনিং পেশাটি বেছে নেয়া এবং শুরুতে সবার সাপোর্ট পাওয়া অনেক কঠিন ছিলো।তারপরও আমি থেমে যাইনি আমার ভিতরে অদম্য ইচ্ছাশক্তি আজ এ পযর্ন্ত নিয়ে এসেছে আলহামদুলিল্লাহ্।আমি বিশ্বাস করি একজন মানুষের মধ্যে ভালো কিছু করার অদম্য ইচ্ছাশক্তি থাকলে তাকে কোনো বাধা আটকাতে পারে না।তার সফলতা আসবেই ইনশাআল্লাহ।আমি আমার জীবনে তার প্রমান পেয়েছি।পাশাপাশি সততা ও কঠোর পরিশ্রমের সাথে থাকতে পারলে জীবনে নিজের অবস্থান শক্ত করা অসম্ভব কিছু না।বতর্মানে আমার ডিজাইনার বেবী ড্রেস, সালাতের হিজাব ,খিমার ,ম‍্যাচিং ড্রেস ও হ‍্যান্ড পেইন্ট ড্রেস সারাদেশসহ দেশের বাহিরেও যাচ্ছে এবং এর মধ্যেই প্রায় সবাই রিপিট কাস্টমার হচ্ছে।অফলাইন, পেজসহ উই থেকে আলহামদুলিল্লাহ্ অনেক অর্ডার পাচ্ছি।শুধু উইতে ১১ মাসে আমার সেল ৪,০৬,৯০০৳ টাকা এছাড়া একজন পরিপূর্ণ উদ‍্যোক্তা হওয়ার যে শিক্ষা তা উই প্লাটফর্ম থেকে শিখতে পারছি।উইকে পেয়েছি বলেই আজ নিজের স্বপ্নকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারছি আর এসব কিছুর জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই শ্রদ্ধেও রাজীব আহমেদ স্যার ও উইয়ের জননী অত্যন্ত ভালো মনের একজন মানুষ নাসিমা আক্তার নিশা আপুকে।

“Mannota Babies fashion” নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?

আমার ভবিষ্যৎ ইচ্ছা আমার ডিজাইনের কাজ একটি ব্র‍্যান্ড হিসেবে দেশসহ দেশের বাহিরে সবাই এক নামে চিনবে।বর্তমানে আমার প্রডাক্টশন হাউজে কর্মী নিয়োগ দেয়া হচ্ছে এবং ইনশাআল্লাহ এর পরিধি বাড়তে থাকবে।আমি যেন আমার সকল কর্মীদের সুন্দরভাবে সুযোগ-সুবিধা ও ট্রেনিং এর মাধ্যমে তাদের আত্নকর্মশীল হিসেবে তৈরী করতে পারি।

RedLive

Related post

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।